আকাশ নীল দেখায় কেন ?

আকাশ নীল দেখায় কেন ?

আকাশ নীল দেখায় কেন ?

নীল আকাশের দিকে তাকিয়ে কখনো কি নিজেকে প্রশ্ন করেছেন, প্রকৃতিতে এতো এতো রং থাকতে আকাশ কেন নীল দেখায় ?

এমন প্রশ্নের সম্মুখীন হয়নি এমন মানুষ হয়তো কস্মিনকালেও হয়তো পাওয়া যাবেনা!

যাই হোক জেনে নেই আকাশ নীল রঙের হওয়ার কারণ। 

আকাশের রং নীল কেন?

আকাশের রং নীল হওয়ার কারণ Light Scattering বা আলোর বিপেক্ষণ। 

যখন কোনো বস্তুর উপর কোনো উৎস থেকে আলো এসে পড়ে তখন সে বস্তু সেই আলোকে শোষণ করে নেয় এবং চারদিকে ছড়িয়ে দেয়। আলোর চারদিকে ছড়িয়ে দেওয়ার এই প্রক্রিয়াকে বলা হয় Light Scattering বা আলোর বিক্ষেপণ। 

কোনো একটা বস্তুতে আলো এসে পড়লে সে আলো কতটুকু বিক্ষেপণ হবে তা নির্ভর করে আলোর তরঙ্গ দৌর্ঘের উপর। 

আলোর তরঙ্গ দৌর্ঘ্য বেশি হলে আলোর বিক্ষেপণ হবে কম, আবার আলোর তরঙ্গ দৈর্ঘ্য কম হলে আলোর বিক্ষেপণ হবে বেশি। 

উদাহরণ স্বরূপ, আমারা সকলেই জানি যে পৃথিবীর বায়ুমন্ডলে রয়েছে অসংখ্য ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ভাসমান কণা। সূর্য থেকে পৃথিবীতে আসা আলো প্রথমে পৃথিবীর বায়ু মন্ডলে কণাগুলো বিচ্ছুরিত হয় বা সেগুলোর সাথে সংঘর্ষ হয়। 

সূর্য থেকে আসা আলোর রং হচ্ছে সাদা। কিন্তু এটা রংধনুর সব রং দিয়ে তৌরি। 

এই সাতটি রংএর তরঙ্গ দৌর্ঘ্য যেহেতু আলাদা আলাদা তাই এই সাত রং সমান ভাবে বিক্ষিপ্ত হবেনা। 

এই সাতটি রং এর মধ্যে সবচেয়ে কম তরঙ্গ দৌর্ঘের আলো হচ্ছে বেগুনি। এবং সবচেয়ে বেশি তরঙ্গ দৌর্ঘের আলো হচ্ছে লাল। 

যেহেতু আলোর তরঙ্গ দৌর্ঘ্য বেশি হলে আলোর বিক্ষেপণ হবে কম, আবার আলোর তরঙ্গ দৌর্ঘ কম হলে আলোর বিক্ষেপণ হবে বেশি। সেহেতু, সূর্য থেকে আসা আলো যখন পৃথিবীর বায়ুমন্ডলে সাথে বিচ্ছুরণ ঘটে তখন তা হতে বেগুনি ও নীলাকার রং বেশি বিক্ষিপ্ত হবে এবং তা আমদের চোখে আসবে। যার ফলে আমরা বায়ুমন্ডলে বা আকাশে নীল রং দেখি। 

নীল আলোর চাইতে যেহেতু বেগুনি আলোর তরঙ্গ দৌর্ঘ কম সেহেতু বেগুনি রং  এর বায়ুমন্ডল না দেখে নীল দেখি কেন ? 

আমাদের চোখ বেগুনি আলোর চাইতে নীল আলোর প্রতি বেশি সংবেদনশীল। যার ফলে আমরা আকাশ বা বায়ুমন্ডলকে নীল দেখতে পাই। 

 মেঘ কেন সাদা দেখায় ?

আলোর তরঙ্গ দৌর্ঘ্য বেশি হলে আলোর বিক্ষেপণ হবে কম, আবার আলোর তরঙ্গ দৌর্ঘ কম হলে আলোর বিক্ষেপণ হবে বেশি। এই প্রক্রিয়াটি শুধু মাত্র বাতাসে থাকা অক্সিজেন বা নাইট্রোজেনের মতো ছোট ছোট কণার জন্য প্রযোয্য। কিন্তু মেঘের মধ্যে যে কণা, বা ধূলিকণা থাকে তা অনেক বড় আকারের। তাই মেঘ সূর্য থেকে যে সাদা আলো পায় এবং সাদা আলোতে যে ৭টি রং থাকে তার প্রত্যেকটিকে সমানভাবে বিক্ষিপ্ত করে। যার ফলে আমাদের কাছে মেঘের সাদা রং পৌঁছায়। 

বিজ্ঞান – Faith and Theology (faith-and-theology.com)

Faith & Theology | Facebook

Facebook
Twitter
LinkedIn
Telegram
WhatsApp

Leave a Comment

Your email address will not be published.

জনপ্রিয় পোস্টসমূহ

সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

Category