সেক্সুয়াল সিলেকশনঃ ইন্টারসেক্সুয়াল সিলেকশন

বিবর্তনবাদ

সূচনা

Mate Choice বা ইন্টারসেক্সুয়াল সিলেকশন / আন্তঃলিঙ্গীয় নির্বাচন সেক্সুয়াল সিলেকশনের আরেকটি প্রকার। আন্তঃলিঙ্গের নির্বাচনে এক লিঙ্গের সদস্যরা (সাধারণত স্ত্রীরা) বিপরীত লিঙ্গের পুরুষদ সদস্যদের বৈশিষ্ট্যের ভিত্তিতে সঙ্গমের জন্য বেছে নেয়। মূলত পুরুষেরা যেসকল অপ্রয়োজনীয় বৈশিষ্ট্য অর্জন করে তা কিন্তু স্ত্রীদের পুরুষ নির্বাচনের ফলেই হয়ে থাকে।

handicap hypothesis

handicap hypothesis: এই হাইপোথিসিস অনুযায়ী পুরুষের মধ্যে যে ক্ষতিকারক কিংবা অপ্রয়োজনীয় বৈশিষ্ট্য থাকে সেগুলো স্ত্রীদের কাছে ভালো লক্ষণ। পুরুষের ক্ষতিকারক বৈশিষ্ট্য গুলোর দ্বারা নারী মনে করে যে হ্যাঁ এই পুরুষটাই আমাকে নিরাপত্তা দিতে পারবে কিংবা এই পুরুষ আমার দায়িত্ব নিতে পারবে। উদাহরণস্বরূপ, মার্লিন নামক উত্তর গোলার্ধের এক ধরনের ছোট পাখি। যখন শিকারী পাখি এই ছোট পাখিকে শিকারের উদ্দেশ্যে ধরার চেষ্টা করে তখন এই পাখিটি গান শুরু করে যেখানে সে বলে শিকারী পাখিটি তাকে কখনোই ধরতে পারবে না এবং স্ত্রী পাখি এটাকেই তার নিরাপত্তার নিশ্চয়তা ধরে নেয়। (১)

Runaway sexual selection

runaway sexual selection: উদাহরণ দিয়ে বোঝানো যাক। পুরুষ ময়ুরের বড় পেখম, দেখতে বেশ সুন্দর রং-বেরঙের চোখের মতো নকশা, দেখতে আকর্ষণীয় লাগে বটে কিন্তু, ময়ুরের জন্য জিনিসটা খুব-একটা সুবিধার না বা প্রয়োজনীয় না। কারণ, পেখম বড় এবং উজ্জ্বল রঙের হওয়ার কারণে অনেক দূর থেকেই শিকারীদের চোখে ধরা পড়ে যাবে। কিন্তু পুরুষ ময়ুরের এই বৈশিষ্ট্যের জন্যই কিন্তু স্ত্রী ময়ুর পুরুষ ময়ুরকে পছন্দ করেছিল, পরবর্তীতে তাদের সঙ্গমে আরও অফস্প্রিং আসবে যার ফলে ময়ুরের এই পেখমের বৈশিষ্ট্য টা টিকে থাকবে। এই বৈশিষ্ট্যটার জন্যই পুরুষ ময়ুর নির্বাচিত হয়েছে এবং স্ত্রী ময়ুরের নির্বাচনের ফলেই এই বৈশিষ্ট্যটা টিকে থাকবে। এই ট্রেইট দুটো ক্রমান্বয়ে এই সিলেকশনের মাধ্যমে একে অপরের প্রতি নির্ভরশীল হয়ে পরে একেই বলা হয় runaway sexual selection.

Sexy son hypothesis

Sexy son hypothesis: এই হাইপোথিসিস অনুযায়ী একটি পপুলেশনে বিদ্যমান সম্ভাব্য সকল পুরুষ সঙ্গীর মধ্যে একজন স্ত্রী সঙ্গীর সবচেয়ে আদর্শ পছন্দনীয় সঙ্গী হলো এমন সঙ্গী যে প্রজননে সর্বোচ্চ ভুমিকা রাখতে পারে। অর্থাৎ সবচেয়ে বেশি বার সঙ্গম করতে পারে। মহিলাদের সঙ্গমের পছন্দের মধ্যে এটি অধিক সঙ্গমে সক্ষম পুরুষ সঙ্গী অধিক পছন্দনীয়। এ নিয়ে রিচার্ড ডকিন্স তার বই ” দ্য সেলফিশ জিন ” এ বলেন,

❝ এমন একটি সমাজে যেখানে পুরুষরা একে অপরের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে একজন স্ত্রীর সাথে সঙ্গমের জন্য , সেখানে একজন মা তার জিনের জন্য সবচেয়ে ভালো জিনিসগুলির মধ্যে একটি মনে করেন এমন একটি ছেলে তৈরি করা যে পালাক্রমে একজন আকর্ষণীয় পুরুষ হিসাবে পরিণত হবে। . যদি তিনি নিশ্চিত করতে পারেন যে তার ছেলে সেই সৌভাগ্যবান পুরুষদের মধ্যে একজন যারা বড় হওয়ার পরে সমাজের বেশিরভাগ সঙ্গম জয় করে, অর্থাৎ অধিক সঙ্গমে সক্ষম তবে তার প্রচুর সংখ্যক নাতি-নাতনি থাকবে।❞

অর্থাৎ এক্ষেত্রে স্ত্রী অধিক সঙ্গমে সক্ষম পুরুষ নির্বাচন করে ফলে পরবর্তীতে প্রজন্ম আরও অধিক সংখ্যক বেশি সঙ্গমে সক্ষম পুরুষ পেয়ে থাকে। (২)

রেফারেন্সঃ

১.https://link.springer.com/article/10.1007/BF00167747
২.https://www.journals.uchicago.edu/doi/10.1086/283379

Asief Mehedi

Assalamualaikum to all.My name is Asief Mehedi . I am an informal philosophy student. Let's talk about comparative theology, we work to suppress atheism. Help us to suppress atheism and come forward to establish peace.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Articles

Back to top button